আলোকিত তারুণ্যের সৃজনশীল প্রয়াস

শিল্পীর কাজ হলো নিজস্ব শিল্পবোধ আর মননের মাধ্যমে রংতুলির প্রতিটি আঁচড়ে সৌন্দর্যকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে প্রকাশ করা। যেখানে পাশাপাশি একদিকে যেমন অবস্থান করবে রূপ, রস ও ছন্দের প্রাচুর্যতা, ঠিক অন্যদিকে প্রকাশ পাবে তারুণ্যের সুতীব্র উচ্ছ্বাস।

সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের জয়নুল গ্যালারিতে হয়ে গেল ‘২১তম বার্জার তরুণশিল্পী চিত্রকর্ম প্রতিযোগিতা ২০১৬’-এর চিত্র প্রদর্শনী। ‘আলোকিত তারুণ্য সৃজনে অনন্য’ শীর্ষক এই চিত্র প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে বাংলাদেশের তরুণ ও সম্ভাবনাময় শিল্পীদের অসংখ্য চিত্রকর্ম থেকে জুরিবোর্ড কর্তৃক পুরস্কারপ্রাপ্ত ৬টি শিল্পকর্মসহ মোট ৪০টি চিত্রকর্ম।

২১ থেকে ২৫ নভেম্বর আয়োজিত পাঁচ দিনব্যাপী এই চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ‘২১তম বার্জার তরুণশিল্পী প্রতিযোগিতা ২০১৬’র জুরি কমিটির চেয়ারম্যান, খ্যাতিমান চিত্রশিল্পী বীরেন সোমসহ জুরি কমিটির সদস্যবৃন্দ ও প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী সকল শিল্পী।

গত ১৬ নভেম্বর গুলশানের লেকশোর হোটেলে ২১তম আসরের বিজয়ীদের প্রাইজমানি, ক্রেস্ট ও সনদ দেওয়া হয়। এ ছাড়া তারা পাবেন কলকাতার বিশ্বভারতীতে আয়োজিত এক কর্মশালায় অংশগ্রহণের সুযোগ। বার্জার পেইন্টসের এবারের আসরে দেশবরেণ্য খ্যাতিমান প্রবাসী শিল্পী মনিরুল ইসলামকে দেওয়া হয় বার্জার লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড-২০১৬। বাংলাদেশের চিত্রকলায় বিশেষ অবদানের স্বরূপ তাঁকে এই সম্মানে ভূষিত করা হয়।

প্রতিবছরের মতো এবারও বাংলাদেশের নবীন ও প্রতিশ্রুতিশীল শিল্পীদের নিয়ে আয়োজিত এই প্রদর্শনীতে স্থান পাওয়া প্রতিটি শিল্পকর্ম বৈশিষ্ট্য ও গঠনগত দিক থেকে যেমন স্বতন্ত্র, তেমন রঙের ব্যবহার এবং আঙ্গিকের মাঝেও রয়েছে নিজস্ব সত্তার প্রতিফলন। এবারের আসরের সেরা যে ছয়জন তরুণশিল্পী ও তাদের শিল্পকর্মকে বিজয়ী হিসেবে সম্মানিত করা হয়েছে তারা হলেন মতুরাম চৌধুরী, আফিয়া আবিদা সুলতানা, মো. রফিকুল ইসলাম, তন্বী দাশ গুপ্তা ও রাশিদা আক্তার।

শিল্পের নিজস্ব কোনো ভাষা নেই। শিল্পীর উপস্থাপনভঙ্গি কিংবা পরিশীলিত প্রয়োগের ফলে সৃষ্টি হয় এক নান্দনিক রূপরেখা। আর সেই রূপরেখার প্রকাশমাধ্যমকেই ভাবা হয় শিল্পের ভাষা। আয়োজিত প্রদর্শনীতে কারও চিত্রপটে ফুটে উঠেছে বাঙালির স্পর্শকাতর ডাকটিকিটের অবয়ব আবার কারও কাজে বোতলবন্দি সৌন্দর্যের উপাখ্যান। যেখানে স্থান পেয়েছে সারিবদ্ধ বোতল ও তার ভেতরকার আবদ্ধ সামাজিক দায়বদ্ধতাগুলো। এ ক্ষেত্রে আবার অন্যদের কাজের ধরন সম্পূর্ণ আলাদা। নিজের ভেতরকার সত্তার সঙ্গে যান্ত্রিকতার মায়ার এক সুন্দর সম্পর্ক স্থাপন করেছেন কেউ। এভাবেই তারুণ্যের আলোকিত মননশীল সৃষ্টির সঙ্গে মিলেমিশে এই আয়োজন যোগ করেছে এক নতুন মাত্রা।